ইবলিশ এবং ওহাবীদের কথপোকথন:
——————————
———————
ইবলিশ – আমি হাজার বছর ফেরেশতাদের সরদার ও শিক্ষক ছিলাম, হাজার বছর জান্নাতের মুন্ত্রী ছিলাম ও হাজার বছর খোদার আরশের তাওয়াফ করেছি ।
আমার নাম প্রথম আসমানে আবিদ, দ্বিতীয় আসমানে জাহিদ, তৃতীয় আসমানে বেলাল, চতুর্থ আসমানে অলী, পঞ্চম আসমানে মুত্তাকী সষ্ট আসমানে আজাজিল ছিল । এখন ইনসাফ করে বল, ওহাবীর দল ?? ?
(১) তোরাও তৌহীদবাদী আমিও তৌহীদবাদী।
(২) আমিও নামাজ খুব পড়তাম তোরাও খু্ব নামাজ পড়িস ।
(৩) আমি আল্লাহ ছাড়া কাউকে সম্মান করতাম না, তোরাও আমাকে অনুসরন করিস, তোরাও আল্লাহ ছাড়া কাউকে সম্মান করিস না ।
(৪) আমি আম্বিয়া গনের অসম্মান, বিরধীতা করতাম তোরাও করিস ।
(৫) আমি আল্লাহর রসুলদিগের মর্যাদা দিতাম না ও মানতাম না, এখানে তোরাও আমার সঙ্গী ।
(৬) আমি আম্বিয়াগনকে বাশার বা সাধারন মানুষ মনে করতাম, তোরাও তাই করিস ।
(৭) আমি ঈদে মিলাদুন নবী বা নবীর আর্বিভাব দিবসে চিতকার দিয়ে কেঁদেছিলাম তোরাও দেখি উক্ত দিনে দুঃখী৷
আমি নবী ও রসুলদিগের অবমান্যনা করি, তোরাও করিস । এখন তোরা ইনসাফ করে বল আমি কেন হলাম শয়তান?????????
????????
তোরা কেন মুসলমান ? ? ? ? ?
যে কাজ করার কারনে আমাকে চিরতরে জান্নাত থেকে শয়তান বলিয়া বহিস্কার বা বিতাড়িত করা হইল সেই কাজ তোরা দুনিয়াতে করে কি ভাবে জান্নাত যাওয়ার আশা রাখিস ? ? ? ?
কেমন করে যাবি জান্নাতে ? ? ?
হায়রে ওহাবীরা তোরা আমার চেয়ে বড় শয়তান।