নারীবাদীরা লেজ কাটা শিয়াল!
——————————–
নারীবাদীরা সমাজের পরিবর্তন চায়, সমাজে গুপ্তাঙ্গের স্বাধীনাত চায়। যেখানে নারী-পুরুষ যত খুশি যার-তার সাথে সেক্স করবে, কোন ধরাবাধা থাকবে না। নারীবাদীদের ভাষায়, সেক্সের মত সুস্বাদু জিনিস দিয়ে চরিত্র খারাপের মানদণ্ড করা ঠিক নয়। যেহেতু মানুষ সমাজের নিয়ম তৈরী করে, আবার নিজেরাই নিয়ম ভাঙ্গে, তাই নারীবাদীরা এমন এক সমাজ চায়, যেখানে অবাধ সেক্স চরিত্র খারাপের মানদণ্ড রূপে গণ্য হবে না, গণ্য হবে চুরি, ডাকাতি, খুনের মত বিষয়গুলো।
নারীবাদীদের এত সুন্দর একটা কথার বিপরীতে মন্তব্য করা আমার সাজে না। আমি শুধু একটা ছড়া দিয়ে আমার লেখা শেষ করবো, ছড়ার নাম-
.
————- “
লেজ কাটা শিয়াল
” ————-
মুরগি চুরি করতে শিয়াল
গেল চলে ফার্মে
দুইটা কুকুর করল তাড়া
আটকে গেলো তার’মে
হেঁচকা টানে খুলতে গিয়ে
কাঁটা তারের পেঁচ’টা
তারের ফলায় গেলো কেটে
লম্বা প্রিয় লেজ’টা
লেজের শোকে কাঁদে শিয়াল
একা বসে ঘরে
এই অপমান যায় না সওয়া
বুদ্ধি ফিকির করে
আমার যখন থাকবে না লেজ
থাকবে না আর কারো
কাটতে হবে সবার লেজ
যেমন করে পারো
সভা ডেকে বুঝায় শিয়াল
লেজের তো নেই দরকার
এতো বড় লেজের জন্য
টেক্স ধরে সরকার
শুধু শুধু লেজ’টা রাখা
সম্মান হানিকার
তার’চে সবাই লেজ’টা কেটে
আমার সমান কর
দেখনা চেয়ে মানুষ জাতির
একটুও নেই লেজ
মহাবীরের মতোই তারা
দেখায় কতো তেজ
লেজ’টা থাকা আমার মতে
ছোট লোকের স্বভাব
তার পরেও লেজা ছাড়া
শিয়াল বড় অভাব।